এই মাত্র পাওয়া:

» সুস্থধারা রাজনীতি ও ভাসানী

প্রকাশিত: ২২. নভেম্বর. ২০২১ | সোমবার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

।। জসিম তালুকদার।। 

রাজনীতি কাকে বলে- এর সংজ্ঞা অনেকেই জানে না, কিন্তু তারপরও রাজনীতি করে যাচ্ছে। রাজনীতি হল ন্যায়নীতি ও আদর্শ অবলম্বন করে রাজ্যের জনগণের কল্যাণ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে কাজ করা।

রাজনীতি মানুষের জীবনকে শ্রেষ্ঠ পর্যায়ে নিয়ে যায়; আবার কোনো কোনো রাজনীতি মানুষের জীবনকে ক্ষতিগ্রস্ত ও ধ্বংস করে। সৎ কাজ ও সৎ অর্থ খরচ করে মানুষের কল্যাণে কাজ করাকে সুস্থ রাজনীতি বলে এবং এই রাজনীতি মানুষকে খ্যাতি ও সম্মানের উচ্চশিখরে পৌঁছে দেয়।

অসৎ কাজ ও অসৎ উপায়ে অর্থ উপার্জন করলে যে কারও রাজনৈতিক জীবনের জন্য ক্ষতির সম্মুখীন হয়, তার স্ত্রী-সন্তানরাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
কারণ,, জনগণের টাকা আত্মসাৎকারীরা হচ্ছে পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বড় অপরাধী।

সুস্থ ধারার রাজনীতি হল, নিজেকে জনগণের গোলাম ও সেবক মনে করে জনগণের সেবা ও কল্যাণের চিন্তা মাথায় নিয়ে নিঃস্বার্থভাবে কাজ করা। রাজনীতিতে উত্থান-পতন উভয়ই থাকে। নিজের সৎ পথে উপার্জিত টাকা খরচ করে বা নিঃস্বার্থভাবে জনগণের কল্যাণে কাজ করে জনগণের দোয়া, ভালোবাসা অর্জন করার মাধ্যমে একজন রাজনীতিকের জীবন সফল ও সার্থক হয়।

বর্তমানে দেশে সৎ ও যোগ্য নেতার অভাব রয়েছে। আমরা অনেকে বলি “আমি অমুকের আদর্শের সৈনিক’ কথাগুলো ব্যবহার করছি; আবার একইসঙ্গে দুর্নীতি ও চাঁদাবাজির রাজনীতি করছি।

কিংবদন্তি মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী’র রাজনীতি ছিল আদর্শের রাজনীতি, খেটে খাওয়া মানুষের মুখে অন্ন-বস্ত্র তুলে দেয়ার রাজনীতি এবং জনগণের কল্যাণ প্রতিষ্ঠা করা ছিল তাঁর রাজনীতি । ছিলনা তাঁর ক্ষমতার মোহ।
তিনি ছিল দূর্নীতি বিরোধী সোচ্চার কন্ঠ। খেয়ে না খেয়ে জনগণের কল্যাণে আজীবন রাজনীতি করে গেছেন। তাঁরই আদর্শের সুস্থধারার রাজনীতি কেবল দেশও জনকল্যাণমুখী আদর্শ লালনে কেবল সুস্থধারা’র রাজনীতি ফিরিয়ে আনা সম্ভব।

লেখক: জসিম তালুকদার
কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি’র-
চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক,
বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি- বাংলাদেশ ন্যাপ।

Facebook Pagelike Widget