» সাপাহারে ঔষধের দোকানে প্রশাসনিক হয়রানি বন্ধে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ১৬. মার্চ. ২০২০ | সোমবার

 

বাবুল আকতার,সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি: জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর আইনে নওগাঁর সাপাহার উপজেলার বিভিন্ন ঔষধের দোকানে অভিযান চালিয়ে জরিমানার নামে হয়রানি করায় বাংলাদেশ কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির তাৎক্ষনিক উপজেলা সদরের সকল ঔষধের দোকান বন্ধ রেখে প্রতিবাদ জানান। এ বিষয়ে সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টায় সদরের বনিক সমিতির কার্যালয়ে প্রশাসনের হয়রানিমূলক এ সকল কার্যক্রম এবং লাইসেন্স বিহীন দোকান গুলোতে অভিযান না চালানোর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেন বাংলাদেশ কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতি সাপাহার শাখা।
সংবাদ সম্মেলনে বিভিন্ন ঔষদের দোকানদারগণ অভিযোগ করেন, আমাদের দেখভাল করার জন্য ড্রাগ সুপার আছেন তাদের যা যা নিয়ম আছেন সব নিয়মকানুন মেনে চলি। কিন্ত হঠাৎ করে যখন তখন জাতীয় ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর সহ বিভিন্ন দপ্তরের লোকজন আমাদের দোকানে এসে অভিযান চালিয়ে অহেতুক জরিমানা করেন। আমরা সর্বদা জনগণের সেবায় নিয়োজিত আছি কোন প্রকার অবৈধ মালামাল বিক্রি করিনা। আমরা লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা করছি কিন্ত উপজেলায় প্রায় ১৪১ টি ঔষধের দোকানে কোন প্রকার লাইসেন্স নেই তাদের বিরুদ্ধে কোন আইনানুগ ব্যবস্থা না নিয়ে কেবল মাত্র আমাদের যুক্তিহীন ভাবে বার বার জরিমানা করে অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ ও হয়রানি করা হচ্ছে।ভোক্তা
সংবাদ সম্মেলনে ড্রাগিষ্ট সমিতির নেতৃবৃন্দ বলেন, আমরা জণগনের কথা চিন্তা করে জণগনের খুবই দরকারি ঔষধের জন্য হয়তো ১ টা দোকান খোলা রাখবো তাছাড়া বাকি সব দোকান আজ থেকে অনির্দিকালের জন্য বন্ধ থাকবে। হয়রানি বন্ধ করার আশ্বাস প্রশাসন দিলেই আমরা আমাদের দোকান গুলো খুলবো।
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশ কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতি সাপাহার শাখার উপদেষ্টা আক্তার হোসেন, মোস্তাক আহম্মেদ, অর্জূণ কুমার সাহা, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বাদল, সহ-সভাপতি অনিল চন্দ্র পাল প্রমূখ। এ সময় সেখানে উপজেলার লাইসেন্সধারী ৮৯ টি ঔষদের দোকানের মালিক ও কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।
এ বিষয়ে উপজেলা স্যানেটারি ইন্সপেক্টর সাখাওয়াত হোসেন জানান, আমরা আজ বেলা ১১ টায় উপজেলার পপুলার মেডিকেল স্টোর নামে একটি ঔষধের দোকানে অভিযান চালিয়ে ডেট এক্সপেরি ঔষধ পাই। সেজন্য ভোক্তা অধিকার আইনে ৫ হাজার টাকা জরিমানা এবং মাস্ক বেশি দামে বিক্রি করার অপরাধে খুশবো আতর হাউজ নামের দোকানে ১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।