» সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের আমাদের সংস্থা থেকে তাদেরকে ফ্রি আইনি সহায়তা দিবঃ এনাম

প্রকাশিত: ১২. ফেব্রুয়ারি. ২০২০ | বুধবার

জাতির  সংবাদ  টোয়েন্টিফোর  ডটকম ।।    সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু তথা হত্যায় অভিযুক্তদের সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন সড়কে সন্তানহারাদের অভিভাবক ও স্বজনরা।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে  নিরাপদ সড়ক আন্দোলন (নিসআ)  আয়োজনে সংবাদ  সম্মেলনে কথা বলেন তারা।ç

সংবাদ সম্মেলনে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা  “এক্সসেস টু হিউমেন রাইটস  ইন্টারন্যাশনাল”  এর চেয়ারম্যান  অ্যাডভোকেট এনামুল হক এনাম বলেন, আমরা দেখেছি ভুক্তভোগী তাদের কোন বিচার পায়নি। বিভিন্ন সময় বিচারের জন্য বিভিন্ন দারেদারে ঘুরে কোন বিচার পায়নি। এমনকি তারা কোন থানায় মামলা পর্যন্ত করতে পারেনি। রাষ্ট্রের নাগরিক হিসেবে তাদের  চাওয়া-পাওয়া তারা কিছুই পায়নি। আইন সবার জন্য সমান । আমাদের চাওয়া একজন নাগরিক হিসাবে  কেন সে বিচার পাবে না মামলা করতে পারবে না। তাই আমরা আমাদের সংস্থা থেকে তাদেরকে ফ্রি আইনি সহায়তা দিব।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন- ২০১৯ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর শেওড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত আদনান তাসিনের বাবা আহসানউল্লাহ টুটুল, ৫ ফেব্রুয়ারি নিহত ফাইজার বাবা ফয়েজুল ইসলাম, গুলশানে নিহত পপি ত্রিপুরার ভাই জয়ন্ত নিকোলাস ত্রিপুরা, এ বছরের ২৭ জানুয়ারি ওয়ারীতে নিহত আবিদের বোন লিজা, ২০১৭ সালের ৩১ অক্টোবর শেওড়ায় নিহত সাইফুল ইসলামের ভাই নাজিমউদ্দিন, কুড়িল বিশ্বরোডে নিহত আলফাজ শিকদারের ভাই আমান উল্লাহ্ সিকদার, ২০১৮ সালে নিহত গফুর শেখের ছেলে মিলন।

শেওড়ায় নিহত সাইফুল ইসলামের ভাই নাজিদউদ্দিন বলেন, আমার ভাইয়ের মৃত্যুর পর ঘাতক বলাকা বাস ও তার চালককে আটক করে থানায় রাখা হয়েছিল। তবে পরবর্তীতে চালককে ছেড়ে দেয়া হয়। আমরা মরদেহের ময়নাতদন্ত না করার অনুরোধ জানিয়ে মরদেহ নিয়ে দাফন করি। এরপর এই দুর্ঘটনার তেমন কোনো তদন্তই হয়নি।

আরেক অভিভাবক বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের কোনো ধরনের ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা না থাকায় দুর্ঘটনা বাড়ছেই। আমরা দেখেছি যেসব দুর্ঘটনায় আন্দোলন অবরোধ হয়েছে সেগুলোরই তদন্ত হয়েছে, তাদের পরিবারই ক্ষতিপূরণ পেয়েছে। সবার ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে হলে আইনের শাসন সুনিশ্চিত করা জরুরি। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ৮০ শতাংশ সড়ক দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে মামলা হয় না, অল্পসংখ্যক মামলা হয় তার বেশিরভাগ মামলার তদন্ত দুর্বলতাসহ নানা কারণে আসামিরা খালাস পেয়ে যায়। ফলে ক্ষতিগ্রস্তদের পরিবার সুশাসন থেকে বঞ্চিত হয়।

নিসআর যুগ্ম আহ্বায়ক ইনজামুল হক বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার নামে হত্যাকাণ্ডের শিকার বড় অংশই শিক্ষার্থী। এসব সমস্যার সমাধানে সড়ক নিরাপত্তা ও নৈতিক শিক্ষা সম্মিলিত পাঠ্যব্যবস্থা গড়ে তুলতে হবে।