» সংবাদ সম্মেলনে গাইবান্ধা ৩ আসনের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা বিএনপির মনোনীত প্রার্থী ডা: সাদিক

প্রকাশিত: ১৭. মার্চ. ২০২০ | মঙ্গলবার

সঞ্জয় সাহা, গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ী ৩ আসনের উপ-নির্বাচন ২০২০ উপলক্ষে শহরের আসাদুজ্জামান মার্কেটের গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে মঙ্গলবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে ১৯ টি বিষয়ে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করল ২০ দলীয় জোট ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী অধ্যাপক ডা:মইনুল হাসান সাদিক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড: মঞ্জুর মোর্শেদ বাবু, শহর বিএনপি’র সভাপতি শহীদুজ্জামান শহীদ, সদর থানা বিএনপি’র আহবায়ক খন্দকার ওমর ফারুক সেলু। মাঝে মাত্র তিনদিন। আগামী শনিবার অনুষ্ঠিত হবে গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ী ৩ আসনের উপনির্বাচন। দেশের সবচেয়ে বড় দুটি রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) উভয়ই এবারের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে দুটি ভিন্ন জোট গঠন করে। ২০ দলীয় নেতৃত্ব দিচ্ছে বিএনপির।
১৭ মার্চ মঙ্গলবার দুপুরে বিএনপি জোটগত ও দলীয়ভাবে ১৯ দফা দাবী প্রদানের লক্ষে নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করেছে। বিএনপি ঘোষিত নির্বাচনী ইশতেহারে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষার পাশাপাশি চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই,দুর্নীতিমুক্ত করনে প্রশাসনিক ও সামাজিক ব্যবস্থা গ্রহণ, স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নের বিষয়ে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে,বিএনপির সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী বিএনপির অধ্যাপক ডাক্তার মইনুল হাসান সাদিক ১৯ দফা দাবী তুলে ধরে বলেন, ১ / অত্র এলাকার উন্নয়নের মূল ভিত্তি হিসেবে যোগাযোগ ব্যবস্থা,প্রতিটি ইউনিয়ন এর অভ্যন্তরীণ ও উপজেলার সঙ্গে রাস্তা পাকা করন/ সংস্কার ও নির্মাণ করা। ২) সাদুল্লাপুর পৌরসভা গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ। ৩) উপজেলা সদরে পৌর পার্ক নির্মাণ। ৪) বেকার যুব সম্প্রদায়কে কর্মমূখী জনগোষ্ঠী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সেলফ এম্প্লয়মেন্ট এর মাধ্যমে কৃষি, মৎস্য, গবাদি পশুর খামার গড়ে তোলা। ৫) প্রতিটি গ্রামে আধুনিক নগর সেবা পৌঁছে দেয়া। ৬) কৃষকদের সর্বপ্রকার কৃষি উপকরণ সহজলভ্য ও কম মূল্যে প্রদান। কৃষি হয়েছে কৃষকরা যেন সরকার নির্ধারিত ভর্তুকি পায় সে বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ।
৭) স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়ন,সাধারণ জনগণ সরকারি হাসপাতাল থেকে কতটুকু সেবা পাচ্ছে তার জন্য দায়িত্বপূর্ণ কমিটি গঠন,যেখানে অভিযোগ করার সুযোগ থাকবে এবং অভিযোগ এলে জবাবদিহিতা করা হবে। ৮) সাদুল্লাপুর- পলাশবাড়ী উপজেলায় খাল খনন করে জলাবদ্ধতা দূর করা,নদীর বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কার করা,লুপ কাটিং এর মাধ্যমে নদী ভাঙ্গন রোধ এবং রাস্তার দুপাশে ভেষজ গাছ ও ফুলের গাছ লাগিয়ে দৃষ্টিনন্দন করা। ৯) পলাশবাড়ী উপজেলায় বিদ্যুতায়ন করা। পলাশবাড়ী চৌরাস্তায় ওভার ব্রিজ নির্মাণ। নলডাঙ্গার রেলস্টেশন সচল ও সকল ট্রেন বিরতি চালু করার ব্যবস্থা করা। পলাশবাড়ীর কালিবাড়ি হাটসহ দুই উপজেলায় প্রত্যেক ইউনিয়নের হাট বাজারে ড্রেনেজ ব্যবস্থা গ্রহণ। ১০) দুই উপজেলার সকল বিদ্যালয়ে উন্নত শিক্ষা নিশ্চিত করা। নিয়মিত মনিটরিং করা,স্কুল কলেজ পরিচালনার জন্য অভিজ্ঞ কমিটি গঠন। ১১) বেকার যুবকদের জন্য কর্মসংস্থান নিশ্চিত করা।
দুই উপজেলায় ইকোনমিক জোন স্থাপন করা।প্রতিটি উপজেলা থেকে যুব/ যুবমহিলা কে বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিদেশে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা। ১২) প্রত্যেক উপজেলায় সরকার কর্তৃক মডেল মসজিদ প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে তা দ্রুত বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করা। সকল ধর্মীয় সম্প্রদায়ের জন্য ঈদগা মাঠ,শ্মশান সংস্কার ইত্যাদি উন্নয়নের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ সহ মোট ১৯ টি দাবি পূরণ করার আশ্বাস দেন।