এই মাত্র পাওয়া:

» যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার ঘটনায় ন্যাপ’র নিন্দা ও প্রতিবাদ

প্রকাশিত: ০১. জুন. ২০২০ | সোমবার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

জাতির সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম   যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের মিনিয়াপলিস শহরে পুলিশ কর্তৃক জর্জ ফ্লয়েড নামের এক কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিককে হত্যার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

সোমবার (০১ জুন) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানান।

তারা বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে শ্বেতাঙ্গের হাতে অন্য বর্ণের মানুষ হত্যা নতুন কোনো ঘটনা নয়। ফ্লয়েডের হত্যাকান্ড আরও একবার সেখানে কৃষ্ণাঙ্গ ও সংখ্যালঘুদের ওপর শ্বেতাঙ্গ পুলিশের নির্মম অত্যাচারের নগ্ন বহি:প্রকাশ মাত্র। এ ঘটনার মাধ্যমে প্রমানিত হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্রে উগ্র বর্ণবাদী শ্বেতাঙ্গ মনোবৃত্তির উত্থান ঘটতে যাচ্ছে। বিশ্বে গণতন্ত্র ও মানবাধিকার রক্ষায় সব সময়ই স্বোচ্চার যুক্তরাষ্ট্র। আর সেই যুক্তরাষ্ট্রের মিনিয়েপোলিস শহরে পুলিশ হেফাজতে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের হত্যা মানবাধিকারকে পদদলীত করেছে।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভ্রান্ত নীতি এই হিংসাত্মক ঘটনা মানবাধিকারকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে। এমনিতেই যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ ও সংখ্যালঘুরা বর্ণবৈষম্য ও জাতিবিদ্বেষের শিকার। ট্রাম্পের গৃহীত পদক্ষেপের কারণে শ্বেতাঙ্গ ব্যতিত অন্য সবার মানবধিকার ইতিমধ্যে হুমকির সম্মুখীন।

তারা বলেন, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার বক্তব্য ‘এখনো লাখ লাখ মানুষকে বর্ণের কারণে নিগৃহিত হতে হয়’ এতে প্রমানিত হচ্ছে ফ্লয়েডের মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রে সংখ্যালঘু বর্ণ সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে পুলিশের নৃশংসতা আবার সামনে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের গুলিতে ২০১৯ সালে মারা গেছে এক হাজারের বেশি মানুষ। বিভিন্ন জরিপে দেখা গেছে, পুলিশের গুলিতে নিহতদের মধ্যে তুলনামূলকভাবে বেশিরভাগই কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান।

নেতৃদ্বয় বলেন, করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে মহামারির মধ্যে মানুষ স্বাভাবিক পরিস্থিতির জন্য উদগ্রীব হয়ে আছে। বিভিন্নভাবে মর্মান্তিক, কষ্টকর এবং মানসিক যন্ত্রণা পোহানোর জেরে বিশ্ববাসীর মত মার্কিনিরাও উৎসুক হয়ে আছে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার। সেই মুহুর্তে একজন কৃষ্ণাঙ্গকে হত্যা করা ট্রাম্প সরকারের উগ্রতারই বহি:প্রকাশ।

তারা বলেন, এই নির্যাতন-নিপীড়নের বিরুদ্ধে জনগণের প্রতিবাদ-প্রতিরোধ শুরু হয়েছে। ‘কৃষ্ণাঙ্গদের জীবনও মূল্যবান’ নামে চলমান আন্দোলন দমনে ট্রাম্প প্রশাসন নির্যাতন নিপীড়নের পথে হাঁটছে। দমন-পীড়ন বন্ধ করে যুক্তরাষ্ট্রের কৃষ্ণাঙ্গ, সংখ্যালঘু ও অভিবাসীদের জীবন, জীবিকা নিশ্চিত করা এবং বর্ণবৈষম্য অবসান ঘটনাতে হবে। অন্যথায় যুক্তরাষ্ট্রে উগ্র জাতীয়তাবাদ ও উগ্র বর্ণবাদের উত্থান ঘটতে পারে, যা বিশ্ব শান্তির জন্য হুমকি হতে পারে।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৩১ বার

[hupso]
Facebook Pagelike Widget