» মানববন্ধনে নেতৃবৃন্দ : লুটেরা মন্ত্রী ও ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট তেলের মূল্যবৃদ্ধি করেছে

প্রকাশিত: ১০. মে. ২০২২ | মঙ্গলবার

জাতির সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম।। 

দেশে সয়াবিন তেলের কোনো সংকট ছিল না। কৃত্রিম সংকট তৈরীর মাধ্যমে লুটেরা মন্ত্রী ও ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট তেলের মুল্য ২৫ শতাংশ বৃদ্ধি করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব ও জাতীয় প্রতিরোধ আন্দোলনের সমন্বয়কারী এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া।

তিনি বলেন, মন্ত্রী ও মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতিবাজ আমলাদের সঙ্গে অসৎ ও লুটেরা ব্যবসায়ীদের যোগসাজশ রয়েছে। যার ফলে ঈদের আগে ভোজ্য তেলের সঙ্কট তৈরী করে যে সিন্ডিকেট জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করেছে সরকার তাদের শাস্তি প্রদান না করে তেলের মূল্যবৃদ্ধির মাধ্যমে পুরস্কৃত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১০ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে “ভোজ্য তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে” ‘জাতীয় প্রতিরোধ আন্দোলন’ আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচীতে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ঈদের আগে থেকেই সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরা বাজারে ভোজ্যতেলের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে। দোকানে কোনও তেল না পাওয়ার চিত্র দেখা যায়। ঈদের পর সংকট আরও তীব্র হতে থাকে। বাজারে এমন সঙ্কটের মাধেই সরকার দেশের মানুষের স্বার্থের কথা বিবেচনা না করে এক লাফে বোতলজাত সয়াবিন তেল ৩৮ টাকা, খোলা সয়াবিন তেল ৪৪ টাকা লিটার প্রতি বৃদ্ধির ঘোষণা দিয়ে জনগনের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহন করেছেন। এতে জনজীবনে দুর্ভোগ নিমে আসবে তার দায় বাণিজ্য মন্ত্রনালয়, বাণিজ্যমন্ত্রী-সচিবও এড়াতে পারবেন না।

তিনি বলেন, সরকারের অব্যবস্থাপনা ও লুটেরা ব্যাবসায়ী সিন্ডিকেটের কারণে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে জনগণের যখন নাভিশ্বাস উঠেছে তখন তেলের মূল্যবৃদ্ধির মাধ্যমে সরকার নিজেই প্রমান করলো দেশের বাজার আজ মুনাফালোভী সিন্ডিকেটের হাতে বন্দি।

হামদুল্লাহ আল মেহেদী বলেন, যেখানে লুটেরাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা, তা না করে সরকার মুল্যবৃদ্ধি করে জনগণের সঙ্গে প্রহসন করা হয়েছে। এটি জনগণের সঙ্গে চরম প্রতারণা ছাড়া অন্যকিছুই নয়।

মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা বলেন, সরকার জনগণকে স্বস্তি দিতে যেখানে আমদানি ও উৎপাদন পর্যায়ে আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার করল, সেই সুবিধা তো জনগণ পেলই না, উল্টো আরও মুল্যবৃদ্ধি করে জনগণের পকেট কাটার সঙ্গে সঙ্গে বাজার থেকে হঠাৎ করে তেল উধাও করে দেওয়া হলো।

এবিএম খালিদ হোসেন বলেন, দ্রব্যমূল্য এখন মধ্যবিত্তের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। ঈদের আগে সরকার অনেক নাটক করেছে। সরকার ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের ওপর দায় চাপানোর চেষ্টা করেছে। অথচ এ কথা দিবালোকের মত স্পষ্ট এসব সিন্ডিকেট সরকারী দলের নেতারাই তৈরী করেছেন।

বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব ও জাতীয় প্রতিরোধ আন্দোলনের সমন্বয়কারী এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া’র সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন এনডিপি মহাসচিব ও জাতীয় প্রতিরোধ আন্দোলনের সদস্য সচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা। বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ লেবার পার্টি চেয়ারম্যান হামদুল্লাহ আল মেহেদী, এবি পার্টির সিনিয়র সহকারী সদস্য সচিব এবিএম খালিদ হোসেন, জাগপা প্রেসিডিয়াম সদস্য আসাদুর রহমান খান, নাগরিক সমাজের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ, সোনার বাংলা পার্টির সাধারন সম্পাদক সৈয়দ হারুন-অর-রশীদ, লেবার পার্টি মহাসচিব আবদুল্লাহ আল মামুন, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি অতিরিক্ত মহাসচিব এডভোকেট জাফর আহমেদ জয়, জাগ্রত জনতা ফোরামের সভাপতি মুহম্মদ ওয়ালিদ সিদ্দিকী তালুকদার,বাংলাদেশ ন্যাপ ভাইস চেয়ারম্যান স্বপন কুমার সাহা, জাতীয় কৃষক-শ্রমিক মুক্তি আন্দোলনের সমন্বয়কারী মো. মহসীন ভুইয়া, জাতীয় নারী আন্দোলনের সভাপতি মিতা রহমান, এবি পার্টির সহকারী সদস্য সচিব এম ইলিয়াস আলী, বাংলাদেশ জাস্টিজ পার্টির চেয়ারম্যান আবুল কাশেম মজুমদার, মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা ও বাস্তবায়ন সংস্থা মো. নুরুল ইসলাম, নারী নেত্রী সাদিয়া সূচি প্রমুখ।