» প্রেমিককে বিয়ের দাবিতে অনশনে মা-মেয়ে

প্রকাশিত: ০৪. জুন. ২০২২ | শনিবার

জাতির সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম।। সদর উপজেলার মঘী ইউনিয়নের আড়ুয়াকান্দি গ্রামের এক যুবককে প্রেমিক দাবি করে বিয়ে জন্য মরিয়া এক তরুণী। প্রেমিকের সঙ্গে মেয়ের বিয়েতে রাজি মাও।

তাই নিজেও মেয়ের প্রেমিকের বাড়িতে বসেছেন অনশনে। বলেছেন, মেয়েকে বিয়ে না দিয়ে কোথাও যাবেন না।

শুক্রবার (৩ জুন) রাতে আড়ুয়াকান্দি গ্রামে ‘প্রেমিক’ যুবকের বাড়ি গিয়ে এ ঘটনা দেখা যায়। শনিবারও (৪ জুন) মা মেয়ে অনশন করেন। বিয়ে না হলে ছেলে ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকিও দিয়েছেন তরুণীর মা।

জানা গেছে, গত ২৩ মে নিজের প্রেমিকের বাড়ি গিয়ে টানা ১২ ঘণ্টা অনশনে বসেন বিয়ের দাবি তোলা তরুণী। বিয়ে না হলে আত্মহত্যার হুমকিও দেন। এ সময় তার প্রেমিকের প্রতিবেশীরা অভিভাবক নিয়ে আসতে পরামর্শ দেন। এরপর তিনি বাড়ি ফিরে যান।

শুক্রবার বিকেলে নিজের মাকে নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে ফেরত আসেন ওই তরুণী। মেয়ের সঙ্গে এসে মাও বিয়ের দাবিতে অনশন শুরু করেছেন। মা-মেয়ের অনশনের খবর পেয়ে প্রতিবেশীরাও ঘটনাস্থলে ভিড় করেছেন।

প্রেমিকের নাম মজনু (ছদ্মনাম)। তিনি তার প্রেমিকাকে বিয়ে করতে রাজি। কিন্তু তার পরিবার রাজি নয়। যে কারণে বিষয়টি নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে।

অনশনকারী মায়ের দাবি, মজনু তার মেয়ের সঙ্গে ‘স্বামী-স্ত্রীর মতো সম্পর্ক’ করেছে। তার মেয়ে প্রেমিককে বিয়ে করতে চায়। কিন্তু মজনুর পরিবার রাজি নয়।

তিনি বলেন, আমি ঢাকায় গার্মেন্টসে কাজ করি। মেয়ের বাবার সঙ্গে আমার ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। মজনুর সঙ্গে বিয়ের জন্য আমার মেয়ে আগেও তাদের বাড়ি এসেছিল। তারা জানিয়েছিল, অভিভাবক নিয়ে আসলে কথা বলবে। আমি দুই দিনের ছুটি নিয়ে এসেছি। তাদের বাড়ির বারান্দায় বসেই আছি। কিন্তু কেউ আসছে না। আমাদের সঙ্গে বিয়ের ব্যাপারে কথাও বলছে না। মেয়েকে বিয়ে না দিয়ে আমি কোথাও যাব না।

বিয়ে দাবিতে অনশনরত তরুণী জানান, তার প্রেমিক বিয়েতে রাজি। তার সঙ্গে কথাও হয়েছে। কিন্তু মজনুর পরিবারের কেউ রাজি না। তিনি বলেন, মজনুর বাবা-মা আমাকে পছন্দ করে না। না করলে না করুক। আমার দরকার ছেলেকে। বিয়ে দিলেই তো সব সমস্যার সমাধান হয়। বিয়ে না দিলে আমি বা মা কেউ এখান থেকে যাব না।

শুক্রবার রাতে সরেজমিনে গিয়ে মা-মেয়েকে মজনুদের বারান্দায় চেয়ার পেতে বসে থাকতে দেখা গিয়েছিল। তখন এ ব্যাপারে কথা বলতে মজনুর পরিবারের কাউকে পাওয়া যায়নি।

শনিবার জানা গেছে, ছুটি শেষ হওয়ায় মেয়েকে নিয়ে মা ফিরে যাচ্ছেন। তবে আবার আসবেন। তখন বিয়ের বিষয়ে কথা বলবেন। মজনুর পরিবার না মানলে তাকেসহ তার পরিবারের সবার বিরুদ্ধে মাগুরা থানায় মামলা করবেন।

মজনুর চাচা বাবুল হোসেনের সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা হলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, তারা (মা-মেয়ে) বিয়ের দাবিতে এলেও সাগর নামে ছেলের এক চাচাতো ভাইকে ঢাকায় আটকে রাখা হয়েছে। বিয়ে না দিলে তারা সাগরকে ছাড়বে না বলে জানিয়েছেন। আমরা খুব বিপদে পড়েছি।

এ ব্যাপারে অনশনকারী মা-মেয়ে স্বীকারোক্তি দেন। তাদের ভাষ্য, সাগর এসব কিছুর জন্য দায়ী। তিনি সব জানেন। সাগর তাদের কাছে প্রমাণস্বরূপ। তাই তাকে ঢাকায় নিরাপদে রাখা হয়েছে। বিয়ে হয়ে গেলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে।

মঘী ইউনিয়নের পরিষদ মেম্বার তোরাব আলীর সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা হয় মুঠোফোনে। তিনি বলেন, আমি শুনেছি এমন একটি ঘটনা এলাকায় ঘটেছে। একটা মেয়ে বিয়ের দাবিতে এলাকায় নিজের মাসহ এসেছেন। আমাকে ডাকা হলে আমি যাব সেখানে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দিন বলেন, মেয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেলে তদন্ত করা হবে। সুস্পষ্ট অভিযোগ হলে তদন্তের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।