এই মাত্র পাওয়া:

» নারীকে মারধোরের অভিযোগে মিরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি গ্রেফতার

প্রকাশিত: ১২. জানুয়ারি. ২০২০ | রবিবার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

রাজু আহমেদ: পূর্ব পরিচয়ের সূত্রে রাজধানীর মিরপুরে তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে বুশরা করিম নামে এক নারীকে মারধরের অভিযোগে মিরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি সৈয়দ শফিকুর রহমানকে (মীর পলাশ) গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ ।

রাজধানীর মিরপুরের রুপনগর থানার একটি মামলায় গতকাল ১১ ডিসেম্বর (শনিবার) সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে বনশ্রীর শরমা নামক একটি হোটেলের সামনে থেকে খিলগাঁও থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে ওইদিন রাতেই রুপনগর থানায় হস্তান্তর করে। পরে আজ ১২ ডিসেম্বর সকালে মীর পলাশকে আদালতে পাঠিয়েছে রুপনগর থানা পুলিশ। রুপনগর থানা ও মারধোরের শিকার ভুক্তভোগী বুশরা করিম নামে ওই মহিলার স্বামীর দেয়া তথ্যমতে জানা গেছে, গত ৮ ডিসেম্বর রবিবার সকাল আনুমানিক ১১ টার দিকে তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে মিরপুর প্রেসক্লাবের পার্শ্ববর্তী মিনা বাজারের সামনে মিরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মীর পলাশ, সেক্রেটারি জাকির হোসেন মোল্যা (কাইল্ল্যা জাকির), প্রচার সম্পাদক মারুফ হায়দারের নেতৃত্বে অজ্ঞাত ৮/১০ জন ওই মহিলাকে তার স্বামীর সামনেই বেধরক মারপিট করে। এক পর্যায়ে লোহার রড দিয়ে মাথায় আঘাত করলে মাথা ফেটে রক্তপাতের এক পর্যায়ে ওই নারী অজ্ঞান হয়ে পড়লে হামলাকারীরা দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে । পরে স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন ওই নারী বাদী হয়ে প্রেসক্লাবের সেক্রেটারি জাকিরকে এক নম্বর,প্রচার সম্পাদক মারুফকে দুই নম্বর ও সভাপতি মীর পলাশকে তিন নম্বর আসামীসহ অজ্ঞাত আরো ছয় জনকে আসামী করে রুপনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। রুপনগর থানার মামলা নম্বর -৭। তারিখ-৯/০১ /২০২০। হামলার শিকার ভুক্তভোগী বুশরা করিম নামে ওই মহিলার স্বামী জয় মাহমুদ জানান, মামলা দায়েরের বিষয়টি জানতে পেরে গত কয়েকদিন যাবত তারা বিভিন্ন মোবাইল নম্বর থেকে আমার মুঠোফোনে ফোন করে মামলা তুলে নিতে আমাকে ও আমার স্ত্রীকে হুমকী দিয়ে আসছে। আমি বনশ্রী এলাকার বাসিন্দা সেটি তরা আগে থেকেই জানতো। সর্বশেষ গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় পলাশ, জাকির, মারুফসহ কয়েকজন বনশ্রীর একটি হোটেলের সামনে আমাকে একা পেয়ে মামলা তুলে নিতে হুমকি দেয়৷ ফের তাদের সাথে আমার বাকবিতন্ডা হলে উপস্থিত সাধারণ জনতা এগিয়ে এসে জানতে চায় কি হয়েছে। এসময় আমি রুপনগর থানার অফিসার ইনচার্জকে বিষয়টি অবহিত করলে তিনি রুপনগর থানার সহায়তা নিয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠান। পুলিশ দেখে জাকির, মারফ ও অন্যান্যরা দোড়ে পালিয়ে গেলেও মীর পলাশকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় পুলিশ। এঘটনার সত্যতা স্বীকার করে রুপনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম আজাদ বলেন, ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের পাশাপাশি বাদবাকি আসামীদের ধরতে তৎপর রয়েছে পুলিশ।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৪৩২ বার

[hupso]
Facebook Pagelike Widget