এই মাত্র পাওয়া:

» তত্ত্বাবধায়ক সরকার গণতন্ত্র বিকাশের জন্য শুভকর নয়- শেখ ছালাউদ্দিন ছালু

প্রকাশিত: ১৬. অক্টোবর. ২০২১ | শনিবার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জাতির সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম।। 

তত্ত্বাবধায়ক সরকার গনতন্ত্র বিকাশের জন্য শুভকর নয়। কারন তত্ত্বাবধায়ক সরকার একটি অনির্বাচিত সরকার। আমরা নিরপেক্ষ এবং সুষ্ঠ ভোটের কথা বলছি। কিন্তু আমরা একটি অনির্বাচিত সরকারের মাধ্যমে নির্বাচন চাচ্ছি। যাহা সবিরোধী বলে আমার মনে হয়। তাই আমরা সংধিানের নতুন আইন করে নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ ও সৎ লোকের নির্বাচন কমিশন চাই। যারা সুষ্ঠ নির্বাচন করতে পারবে।

শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি (এনপিপি)’র অংঙ্গ সংগঠন ন্যাশনাল পিপলস্ মহিলা পার্টি’র দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে এসব কথা বলেন ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ ছালাউদ্দিন ছালু।

সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন ন্যাশনাল পিপলস্ মহিলা পার্টি’র আহবায়ক ফেরদৌসী আক্তার (নীলা মল্লিক)। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি (এনপিপি) ও এর নেতৃত্বাধীন জোট ন্যাশনালিস্ট ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (এনডিএফ)’র চেয়ারম্যান জননেতা আলহাজ্ব শেখ ছালাউদ্দিন ছালু।

 

প্রধান অতিথি জননেতা আলহাজ্ব শেখ ছালাউদ্দিন ছালু বক্তব্যের শুরুতে ন্যাশনাল পিপলস্ মহিলা পার্টির সম্মেলনে সভানেত্রী, আগত এনপিপি ও এনডিএফ এর নেতৃবৃন্দ এবং সাংবাদিক বৃন্দ সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ২০০৭ সালে এনপিপি একটি লক্ষ্য নিয়ে আত্মপ্রকাশ করেছিল। সেই লক্ষ্যে আমরা সবাই কাজ করছি। এখন বাংলাদেশের রাজনীতি দুবৃত্তায়নের কবলে পতিত হয়েছে। পেশিশক্তি ও কালো টাকার কাছে রাজনীতি এখন বন্দি। সত্যিকারের জনকল্যানের জন্য এখন আর কেউ রাজনীতি করছে না। কিন্তু জাতীয় নেতা মরহুম শেখ শওকত হোসেন নিলু জনকল্যানের জন্য একটি আদর্শ দল তৈরী করতে চেয়েছিলেন। সেই লক্ষে তিনি একটি শ্লোগান তুলেছিলেন। সেই শ্লোগান হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, জাতীয়তাবাদ ও ধর্মীয় মূল্যবোধের ভিত্তিতে বিকল্প রাজনৈতিক শক্তি গড়ে তোলা। আমরা এই শ্লোগান কে ধারন করে সৎ এবং আদর্শ দল হিসেবে এনপিপিকে প্রতিষ্ঠা করতে চাই। এরই মধ্যে হাঁটি হাঁটি পা পা করে সারা বাংলাদেশে এনপিপি বিস্তার লাভ করেছে। এনপিপি ও এনডিএফকে আরো সু-সংগঠিত করার জন্য আমাদের সবাইকে আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে হবে।

শেখ ছালাউদ্দিন ছালু বলেন, আপনারা জানেন ২০২২ সালের ১৫ই ফেব্রæয়ারী বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে এবং আগামী ২০২৩ সালে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন হবে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সমস্ত দলের ভিতরে নির্বাচন ও নির্বাচন কমিশন নিয়ে আলোচনা চলছে। বিএনপি চায় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন। তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা করার জন্য আন্দোলন করার হুমকি দিচ্ছে। আমি পরিস্কার ভাষায় বলতে চায় ভার্চুয়ালের মাধ্যমে মিটিং করে আন্দোলন হবে না। ভার্চুয়ালের মাধ্যমে মিটিং করে কমিটি বানিজ্য হবে, নমিনেশন বানিজ্য হবে কিন্তু আন্দোলন হবে না। যদি আন্দোলন করতে হয় তাহলে সাহস করে দেশে এসে নেতা-কর্মীদের নিয়ে রাজপথে আন্দোলন করুন।

তিনি আরো বলেন, আন্দোলন করার জন্য সাহসী নেতা দরকার এবং মৃত্যু ঝুকি নিতে পারে এমন কর্মী দরকার। সেই নেতা ও কর্মী বিএনপিতে নাই। জাতীয় নেতা মরহুম শেখ শওকত হোসেন নিলু ও শফিউল আলম প্রধান মৃত্যুর ঝুকি নিয়ে পুলিশের ব্যারিকেট ভেঙ্গেছে এবং আন্দোলনে সফল হয়েছে। যার সুফল বিএনপি ভোগ করেছে। কিন্তু বিএনপি যখন ক্ষমতায় গিয়েছে তখন এদরে ভূলে গিয়েছে। এজন্য এখন কেও মৃত্যুর ঝুকি নিচ্ছে না এবং আন্দোলনও করতে পারছেনা।

তিনি বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার গনতন্ত্র বিকাশের জন্য শুভকর নয়। কারন তত্ত্বাবধায়ক সরকার একটি অনির্বাচিত সরকার। আমরা নিরপেক্ষ এবং সুষ্ঠ ভোটের কথা বলছি। কিন্তু আমরা একটি অনির্বাচিত সরকারের মাধ্যমে নির্বাচন চাচ্ছি। যাহা সবিরোধী বলে আমার মনে হয়। তাই আমরা সংধিানের নতুন আইন করে নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ ও সৎ লোকের নির্বাচন কমিশন চাই। যারা সুষ্ঠ নির্বাচন করতে পারবে। নির্বাচন কালীন সময়ে সরকারের শুধু রুটিন কাজ করবে এবং নির্বাচন কমিশন সংবিধান অনুযায়ী নির্বাহী দায়িত্বে থাকবে। যাহা আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে বিদ্যমান।

তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করে বলেন, আপনি দেশের যে উন্নয়ন করেছেন সে উন্নয়নের সুফল যদি জনগণকে ভোগ করতে হয় তাহলে আমলাতন্ত্রের দৌরত্ব্য এবং দূণীতি কঠিন হস্তে দমন করতে হবে। দেশে সৎ লোকের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এখনও এদেশে অনেক সং লোক আছে।
এনপিপি ও এনডিএফ নেতৃবৃন্দকে আমি বলতে চাই, আমরা গত সংসদ নির্বাচন করেছি, উপজেলা নির্বাচন করেছি এবং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও অংশ গ্রহণ করছি। তাই আগামী ২০২৩ সালে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ৩০০ সংসদীয় আসনে প্রতিদ্বন্দিতা করতে পারি সেই লক্ষ্যে আমাদের কাজ করতে হবে।

পরিশেষে তিনি সর্বস্তরের জনসাধারণকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, জাতীয়তাবাদ ও ধর্মীয় মূল্যবোধের ভিত্তিতে বিকল্প রাজনৈতিক শক্তি গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে সৎ এবং আদর্শ দল হিসেবে এনপিপিকে প্রতিষ্ঠিত করার আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি (এনপিপি)’র মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল হাই মন্ডল, স্বাগত বক্তব্য রাখেন ন্যাশনাল পিপলস্ মহিলা পার্টি’র আহবায়ক ফেরদৌসী আক্তার (নীলা মল্লিক) এবং সাংগঠনিক রিপোট উপস্থাপন করেন আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব প্রিয়াংকা চৌধুরী। বিশেষ শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন ন্যাশনাল পিপলস্ মহিলা পার্টির দসাবেক সভাপতি মিসেস আশা সিদ্দিকা।

আরো বক্তব্য রাখেন, ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি (এনপিপি)’র প্রেসিডিয়াম সদস্য মিসেস খালেকুজ্জামান খান দুদু, মোঃ ইদ্রিস চৌধুরী, শেখ আবুল কালাম, মোঃ আনিসুর রহমান দেওয়ান, মামুনুর রশিদ মামুন, সৈয়দ মাহমুদুল হক আক্কাছ, বাংলাদেশ ইসলামিক পার্টি’র চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ, ন্যাশনাল কংগ্রেস বাংলাদেশ’র চেয়ারম্যান ছাবের আহাম্মদ (কাজী ছাব্বীর, এনপিপি’র খুলনা বিভাগীয় সমন্বয়কারী শেখ ইকবাল হাসান স্বপন, এনপিপি’র ভাইস চেয়ারম্যান ও ময়মনসিংহ জেলার সভাপতি মির্জা হামিদুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান ওয়াহিদুজ্জামান বাচ্চু, যুুগ্ম মহাসচিব জিয়া জামান খান প্রিন্স, ঢাকা মহানগর উত্তরের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোঃ গিয়াস উদ্দিন, এনপিপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক ও ন্যাশনাল পিপলস্ স্বেচ্ছাসেবক পার্টি’র সাধারন সম্পাদক মোঃ সাহেব আলী হাওলাদার রনি, ঢাকা মহানগর উত্তরের সহ- সভাপতি শেখ জাবেদ কামাল, ঢাকা মহানগর দক্ষিনের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আব্দুস সালাম হাওলাদার, ন্যাশনাল পিপলস্ যুব পার্টি’র ঢাকা মহানগরের আহবায়ক মোঃ জমির উদ্দিন নিশান, ন্যাশনাল পিপলস্ মহিলা পার্টি’র যুগ্ম আহবায়ক শাকিলা আক্তার মিতা, মহিলা পার্টি’র ঢাকা মহানগরের আহবায়ক আফরোজা পারভীন মিনু প্রমুখ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ ভাসানীর চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হাই সরকার, ডেমোক্রেটিক পার্টি বাংলাদেশ’র চেয়ারম্যান এ্যাডঃ জাহাঙ্গীর হোসেন খান, এনপিপি’র প্রেসিডিয়াম সদস্য সেলিম তালুকদার, ডাঃ মোঃ আলতাফ হোসেন, মোঃ মোশাররফ হোসেন বকুল, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আকতার হোসেন, যুুগ্ম মহাসচিব ও ন্যাশনাল পিপলস্ স্বেচ্ছাসেবক পার্টি’র সভাপতি মোঃ এমাদুল হক রানা, যুগ্ম মাহসচিব খোশাল খান, সাংগঠনিক সম্পাদক ও ন্যাশনাল পিপলস্ যুব পার্টির সভাপতি ইঞ্জি: কে এম সামসুল আলম মিশুক, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সামান মিয়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিনের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সামছুদ্দিন রতন, ন্যাশনাল পিপলস্ যুব পার্টির সাধারন সম্পাদক মোঃ মকবুল হোসেনসহ এনপিপি ও মহিলা পার্টির কেন্দ্রীয়, মহানগর ও জেলার বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন ন্যাশনাল পিপলস্ শ্রমিক পার্টি’র সদস্য সচিব মাওলানা লুৎফুর রহমান।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ন্যাশনাল পিপলস্ মহিলা পার্টি’র যুগ্ম আহবায়ক তাসমিন আহমেদ (শিমুল)

Facebook Pagelike Widget